হাজার বছরের সর্বোচ্চ বৃষ্টির সাথে চীনে দ্রুত ছড়াচ্ছে ডেল্টা ভেরিয়েন্ট

 প্রকাশ: ০২ অগাস্ট ২০২১, ০৮:৪৬ অপরাহ্ন   |   আন্তর্জাতিক




চীনের প্রাদেশিক সরকারের পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয় ‘হাজার বছরের’ সর্বোচ্চ বৃষ্টির কারণে হেনান প্রদেশ ভয়াবহ বন্যার মুখোমুখি হয়েছে। বন্যায় ঝেংঝৌ মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। শুধুমাত্র এই প্রদেশেই প্রবল বৃষ্টিপাত এবং বন্যায় ২৯২ জনের প্রাণহানি ঘটেছে এবং নিখোঁজ হয়েছেন ৪৭ জন। বন্যার পরিস্থিতি খুবই ভয়াবহ, ভূগর্ভস্থ একটি গাড়ি পার্কিংয়ে এক সাথে প্রাণ হারিয়েছেন অন্তত ৩৯ জন। এছাড়া একটি সুরঙ্গে প্রাণ হারিয়েছেন আরও ৬ জন।


গত ১৭ জুলাই চীনের হেনান প্রদেশে ভারী বৃষ্টিপাত শুরু হয়। বর্ষণ এবং বন্যায় সেখানকার এক কোটি ৩০ লাখ মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। এতে অন্তত ৯ হাজার বাড়িঘর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বন্যায় হেনানের মোট আর্থিক ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৮ দশমিক ২ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে। এদিকে ফ্রান্সের বার্তাসংস্থা এএফপির ক্যামেরায় ধারণ করা বন্যার ভিডিও ফুটেজ মুছে ফেলতে বাধ্য করেছেন হেনানের স্থানীয় একদল বাসিন্দা। এছাড়াও বন্যার তথ্য প্রচারের সময় তাদের ঘিরে ধরে হেনস্থা করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেন সংবাদকর্মীরা।



উচ্চ এবং নিম্ন আয়ের উভয় দেশই ডেল্টা ভেরিয়েন্টের বিরুদ্ধে লড়াই করছে, টিকাদানে বৈষম্য রেখে, ব্যাপক লোককে টিকাদানের আওতার বাইরে রেখে আরো বিপর্যয়ের ঝুঁকি তৈরি হচ্ছে। চীন থেকেই প্রথম কোভিড-১৯ বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়ে, সে সময় এক মিলিয়নের বেশী লোককে লকডাউনে রেখে এবং গণ টেস্টিংয়ের মাধ্যমে অতি সংক্রামক ভাইরাস স্ট্রেইন প্রতিরোধে সক্ষম হয়। করোনা ভাইরাস সংক্রমণ পুনরায় বিশ্বব্যাপী বৃদ্ধি পাচ্ছে, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ঘোষণা দিয়ে বলেছে, সংস্থার ৬ টি অঞ্চলের মধ্যে ৫ টি অঞ্চলে গত ৪ সপ্তাহে সংক্রমণ গড়ে ৮০ শতাংশ বেড়েছে। ডেল্টা ভেরিয়েন্টের কারণে এই সংক্রমণ লাফিয়ে দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে। ডেল্টা ভেরিয়েন্ট দ্রুত ছড়িয়ে পড়ায় চীন ও অস্ট্রেলিয়ায় শনিবার করোনা বিধি-নিষেধে আরো কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছে। ভাইরাস আরো প্রাণঘাতী এবং মহামারি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাওয়ার আগে দ্রুত এর মিউটেশন প্রতিরোধে বিশ্বের প্রতি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার আহবানের পর এই পদক্ষেপ নেয়া হয়। কয়েক মাসে চীনে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ দ্রুত বৃদ্ধি পাওয়ায় শনিবার আরও দু’টি এলাকা ফুজিয়ান প্রদেশ এবং মেগাসিটি চংকিংয়ে সংক্রমণ ছড়িয়েছে।  
অস্ট্রেলিয়ার জনসংখ্যার মাত্র ১৪ শতাংশ লোককে টিকা দেয়া হয়েছে, ডেল্টা ভেরিয়েন্ট ছড়িয়ে পড়ায় তৃতীয় বৃহত্তম নগরী ব্রিসবেন এবং কুইন্সল্যান্ড রাজ্যের অন্যান্য অংশে শনিবার থেকে পুরোপুরি লকডাউনের আওতায় আনা হয়েছে। বিশ্ব অলিম্পিকের আয়োজক জাপানের রাজধানী টোকিও, মালয়েশিয়া ও থাইল্যান্ডে একদিনে রেকর্ড সংখ্যক মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন।মহামারীর নতুন হটস্পট হয়ে ওঠা দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার দেশ মালয়েশিয়াতেও সর্বোচ্চ সংখ্যক দৈনিক আক্রান্তের ঘটনা ঘটেছে। থাইল্যান্ড এদিন রেকর্ড ১৮৯১২ জন নতুন রোগী শনাক্তের কথা জানিয়েছে। গত চার সপ্তাহে বিশ্বের অধিকাংশ অঞ্চলে কোভিড-১৯ সংক্রমণ ৮০ শতাংশ বেড়েছে বলে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মহাপরিচালক তেদ্রোস আধানম গেব্রিয়েসাসুস জানিয়েছেন। মহামারির বিরুদ্ধে গত দেড় বছরে অনেক কষ্টে যেসব সাফল্য অর্জিত হয়েছিল- ডেল্টার কারণে আজ সেসবের প্রায় সবই হুমকির সম্মুখীন।