শেরপুর জেলা পুলিশে কনস্টেবল পদে ২৮ জন মনোনীত

 প্রকাশ: ১৫ নভেম্বর ২০২১, ০৮:২৯ অপরাহ্ন   |   পুলিশ প্রশাসন



শাহরিয়ার মিল্টন ( শেরপুর) :  :  ‘চাকরি নয়, সেবা’—এই শ্লোগানে বাংলাদেশ পুলিশে ট্রেইনি রিক্রুট কনস্টেবল (টিআরসি) পদে নিয়োগ পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ হয়েছে। রোববার  (১৪ নভেম্বর)  রাতে পুলিশ লাইন্স শেরপুরে ট্রেইনি রিক্রুট কনস্টেবল (টিআরসি) পদে শেরপুর জেলায় নিয়োগযোগ্য প্রকৃত শূণ্য পদের বিপরীতে সরকার কর্তৃক জারিকৃত বিদ্যমান সাধারণ, মুক্তিযোদ্ধা, আনসার ও ভিডিপি, পোষ্য এবং ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী কোটা পদ্ধতি অনুসরণ করে শারীরিক মাপ ও শারীরিক সক্ষমতা যাচাই এর সকল ইভেন্টে কৃতকার্যদের লিখিত, মনস্তাত্ত্বিক ও মৌখিক পরীক্ষায় প্রাপ্ত নম্বরের ভিত্তিতে মেধাক্রম অনুযায়ী নিয়োগ কার্যক্রম শতভাগ মেধা, যোগ্যতা ও স্বচ্ছতার মাধ্যমে সম্পন্ন করে ফলাফল প্রকাশ হয়।

শেরপুর জেলা টিআরসি নিয়োগ বোর্ডের সভাপতি পুলিশ সুপার  মোঃ হাসান নাহিদ চৌধুরী শেরপুর জেলায় চূড়ান্তভাবে উত্তীর্ণ প্রার্থীদের ফলাফল ও নাম ঘোষণা করেন এবং জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানান। এ সময় চূড়ান্তভাবে উত্তীর্ণ প্রার্থী ও তাদের অভিভাবক অনেকে আবেগপ্রবণ হয়ে তাৎক্ষণিক অনুভূতি ব্যক্ত করেন।

পুলিশ সুপার  বলেন, যারা নির্বাচিত হয়েছো তাদের অভিনন্দন, যারা নির্বাচিত হও নাই তোমাদের কষ্ট আমরা অনুধাবন করি, তোমারা আসলে খুবই সামান্য ব্যবধানে উত্তীর্ণ হতে পারনি কিন্তু, তোমরা সবাই পাওয়ার মতো যোগ্য আমাদের কাছে সেটায় মনে হয়েছে। একটা প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় ১, ২ ব্যবধানে অনেক সময় এগিয়ে যায়। আগামী কয়েক মাসের ভিতর আরেকটা নতুন নিয়োগ আসবে যা সংখ্যায় বেশি হবে। আমার বিশ্বাস তোমাদের এই স্কিল যদি ধরে রাখতে পারো নিশ্চয়ই তোমার চান্স পাবে। আমাদের বাহিনীর প্রধান দক্ষ সুযোগ্য আইজিপি ড. বেনজির আহমেদ, বিপিএম এর নির্দেশনায় পুলিশের রিক্রুমেন্ট আরো যুগপযোগী করা হয়েছে। তিনি অনেক বিষয় বিবেচনা করে যেন  আমরা যোগ্য লোক আমাদের বাহিনীতে নিয়োগ করতে পারি সেই পদ্ধতি  দাঁড় করিয়েছেন। আমার বিশ্বাস করি আমরা যোগ্যদেরকে বেছে নিতে পেরেছি। পরে চূড়ান্তভাবে উত্তীর্ণদের সততা, নিষ্ঠা ও পেশাদারিত্ব সাথে দেশসেবার মনোভাব নিয়ে বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীতে কাজ করার আহবান জানান।
এসময় নিয়োগ বোর্ডের সদস্য হিসাবে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি, ময়মনসিংহ) ফাল্গুনী নন্দী, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (দেওয়ানগঞ্জ সার্কেল) রাকিবুল হাসান রাসেল-সহ জেলা পুলিের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও নিয়োগ কার্যক্রমের সাথে সম্পৃক্ত পুলিশ সদস্যগণ ও প্রার্থী ও তাদের অভিভাবকগণ উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য যে, শেরপুর জেলা পুলিশে কনস্টেবল পদে ২৮ জন শুন্যপদের বিপরীতে প্রিলিমিনারি স্ক্রিনিং শেষে ১১২০ জন প্রার্থী শারীরিক মাপ, শারীরিক সক্ষমতা যাচাই পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ পান। শারীরিক মাপ, শারীরিক সক্ষমতা যাচাই পরিক্ষা শেষে ২৬২ জন লিখিত পরীক্ষা অংশগ্রহণ করে এবং লিখিত পরীক্ষায় ৮৩ জন প্রার্থী উত্তীর্ণ হয়ে মৌখিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেন। তন্মধ্যে চূড়ান্তভাবে পুরুষ সাধারণ- ১৫ জন, পুরুষ মুক্তিযোদ্ধা- ৪ জন, পুরুষ পোষ্য- ২ জন, পুরুষ আনসার- ২ জন, পুরুষ ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী- ১ জন, নারী সাধারণ- ৩ জন, নারী মুক্তিযোদ্ধা- ১ জন-সহ সর্বমোট-২৮ জনকে মনোনীত করা হয় ৷