স্পেনকে উড়িয়ে নেশন্স লিগের শিরোপা ফ্রান্সের

 প্রকাশ: ১১ অক্টোবর ২০২১, ০৯:২২ পূর্বাহ্ন   |   খেলাধুলা



উয়েফা নেশন্স লিগের দ্বিতীয় আসরের শিরোপা জিতে নিল বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ফ্রান্স। রোববার রাতে ২০১০ সালের বিশ্বকাপ জেতা স্পেনকে ২-১ ব্যবধানে হারিয়ে প্রথমবারের মতো এই টুর্নামেন্ট চ্যাম্পিয়ন হলো দিদিয়ের দেশমের শিষ্যরা।


 
প্রথমার্ধে দুর্দান্ত খেলা দুই দল গোলের দেখা না পেলেও দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই মিকেল ওয়ারযাবালের গোলে এগিয়ে যায় স্পেন। তবে কিছুক্ষণ পরেই করিম বেনজেমা সমতায় ফেরানোর পর এমবাপ্পের গোলে এগিয়ে যায় ফ্রান্স।  

ইতালির সান সিরোতে ম্যাচের শুরু থেকেই চোখ জুড়ানো খেলা উপহার দিয়েছিল দুই দল। আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণে জমে উঠেছিল নেশন্স লিগের ফাইনাল। বল দখলে প্রথমার্ধে এগিয়ে থাকলেও গোলের দেখা পায়নি স্পেন। যদিও কয়েকবার ফ্রান্সের পাল্টা আক্রমণের স্বিকার হয়েছিল স্প্যানিশরা, তবে প্রথমার্ধে রক্ষণভাগের দেয়াল আর পেরোতে পারেনি। উল্টো ৪১তম মিনিটে ডি বক্স থেকে বল ঠেকিয়ে পায়ে চোট পান ডিফেন্ডার রাফায়েল ভারানে। ম্যানইউর এ ডিফেন্ডারের বদলি হয়ে মাঠে নামে দায়োত উপমেকানো।  

বিরতির পর খেলতে নেমে আগের মতোই আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণে চলছিল ম্যাচটি। ৬৪তম মিনিটে এগিয়ে যেতে পারত ফ্রান্স। পাল্টা আক্রমণের সুযোগ কাজে লাগিয়ে থিও হার্নান্দেজের বুলেট গতির শট বারে লেগে ফিরে আসে। কয়েক সেকেন্ড না পেরোতেই ওয়ারজাবালের গোলে এগিয়ে যায় স্পেন। বার্সা মিডফিল্ডার সের্হিও বুসকেতসের লং পাস থেকে বল নিয়ন্ত্রণে এনে প্রতিপক্ষের ডিফেন্ডার উপামেকানোকে বোকা বানিয়ে সহজেই ফ্রান্সের জাল খুঁজে নেন রিয়েল সোসিয়েদাদের এই ফরোয়ার্ড।  

২ মিনিট পর বেনজেমার গোলে সমতায় ফিরে ফ্রান্স। এমবাপ্পের পাস থেকে বল নিয়ে দুর্দান্ত এক বুলেট গতির শটে স্পেনের গোলপোস্টের ডান কর্ণার খুঁজে নেন রিয়াল মাদ্রিদের এই ফরোয়ার্ড। ঝাপিয়েও গোল রক্ষা করতে পারেননি স্প্যানিশ গোলরক্ষক উনাই সিমোন।  

৮০তম মিনিটে এমবাপ্পের গোলে এগিয়ে যায় ফ্রান্স। হার্নান্দেজ থেকে পাওয়া বল পেয়ে ডিফেন্ডারদের বোকা বানিয়ে ডি-বক্স থেকে প্রতিপক্ষের জাল খুঁজে নেন পিএসজির এই ফরোয়ার্ড। তবে গোলটি অফসাইড হয়েছে বলে দাবি করে স্পেন। কিন্তু রেফারি এটি সঠিক বলে সিদ্ধান্ত দেয়। ৮৯তম মিনিটে কর্ণার কিক থেকে আসা বল সুন্দর এক ভলিতে জালে ভেড়াবার চেস্টা করলেও হুগো লরিসের দৃঢ়তায় রক্ষা পায় ফ্রান্স। আর ২-১ ব্যবধানের জয় নিয়েই প্রথমবারের মতো নেশন্স লিগ শিরোপার স্বাদ পায় বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা।

এক অ্যাসিস্ট ও এক গোল করে ম্যাচসেরার পুরস্কার পান রিয়াল মাদ্রিদ ফরোয়ার্ড বেনজেমা।