কালোতালিকাভুক্তির তথ্যটি সত্য নয় বলে দাবি কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের

 প্রকাশ: ২৩ এপ্রিল ২০২২, ০২:৫৮ অপরাহ্ন   |   শিক্ষা




সম্প্রতি যুক্তরাজ্য কমিউনিটি ভিত্তিক একটি গণমাধ্যম ও বাংলাদেশের একটি গণমাধ্যমে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়সহ বাংলাদেশের নামসর্বস্ব ৫টি বিশ্ববিদ্যালয়কে যুক্তরাজ্যের ইউনিভার্সিটি অফ ক্রিয়েটিভ আর্টস (ইউসিএ) এর ব্লাকলিষ্টভূক্ত করেছে এমন সংবাদ প্রচারিত হয়েছে। তবে এ তথ্যটি সত্য নয় বলে দাবি কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের। শুক্রবার (২২ এপ্রিল) বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত জনসংযোগ কর্মকর্তা মোহাম্মদ এমদাদুল হক স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে বিষয়টি জানা যায়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, নামগুলোর মধ্যে দেখতে পাওয়া যায় Cumilla এবং Cumillah শব্দ অন্তর্ভূক্ত করে দু'টি নামসর্বস্ব বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম উল্লেখ রয়েছে কিন্তু আমাদের প্রিয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি নাম "Comilla University" এবং বাংলায় "কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়"। এ থেকে সুস্পষ্টভাবে প্রতীয়মান হয় "Comilla University" ইউসিএ এর নিষেধাজ্ঞার তালিকায় নেই ফলশ্রুতিতে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের উক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ে উচ্চ শিক্ষাগ্রহণে কোন বাঁধার সম্মুখিন হবে না। 

উল্লেখ্য যে, সম্প্রতি বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন শিক্ষার্থী ও জনসাধারণকে সচেতন করার জন্য কিছু নামসর্বস্ব বিশ্ববিদ্যালয় উল্লেখ করে গত ১৮ এপ্রিল গণ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে।

বিষয়টি অত্যন্ত স্পর্শকাতর ও উদ্বেগের বিধায় শিক্ষার্থীদের ও বিশ্ববিদ্যালয়ের মর্যাদা রক্ষার্তে ইতোমধ্যে কুবি উপাচার্য যুক্তরাজ্যের ইউনিভার্সিটি অফ ক্রিয়েটিভ আর্টসের উপাচার্য বরাবর পত্র প্রেরণ করে অবহিত করেছেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে অতি দ্রুত বাংলাদেশে অবস্থিত বৃটিশ হাই কমিশনকে অবহিত করবে যাতে না বুঝে তথ্য-উপাত্ত ব্যতিত শুধুমাত্র ব্যবসায়িক মানসিকতায় বৃটেনে অবস্থিত কোন এজেন্সি এ ধরণের বিভ্রান্তিকর ও অপপ্রচারমূলক প্রচারণা থেকে বিরত থাকে। এহেন পরিস্থিতিতে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল শিক্ষার্থী, শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদেরকে জনসাধারণের নিকট সঠিক ও বস্তুনিষ্ঠ তথ্য উপস্থাপনের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ আহ্বান জানিয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ছাড়াও এ বিষয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ও মিডিয়ায় যে তথ্যটি ছড়িয়ে পড়ছে তা মিথ্যা ও বিভ্রান্তিকর বলে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে কাজী ওমর সিদ্দিকী ও মাহবুবুল হক ভূঁইয়া সর্মথিত বঙ্গবন্ধু পরিষদের একাংশ।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ও গণমাধ্যমে  কোনো ধরণের যাচাই বাছাই ছাড়া কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় (Comilla University) বলে উল্লেখ করা হয়েছে। যা অসত্য এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি রক্ষায় ক্ষতিকর।
গণমাধ্যমে প্রকাশিত নিউজে ইউসিএ কর্তৃপক্ষের কোন বক্তব্য নেই এবং আমরা তাদের ওয়েবসাইটে এ সম্পর্কিত কোনো বিজ্ঞপ্তি দেখতে পাইনি।  
গণমাধ্যম এবং সংশ্লিষ্ট সকলকে এ বিষয়ে বিভ্রান্তিকর তথ্য না ছড়িয়ে নিজ নিজ অবস্থা থেকে দায়িত্বশীল ভূমিকা পালনের জন্য অনুরোধ করা হয়েছে।

এদিকে, বৃহস্পতিবার (২১ এপ্রিল) একাত্তর টিভিতে কুবিসহ  বাংলাদেশের নামসর্বস্ব ৫টি বিশ্ববিদ্যালয়কে যুক্তরাজ্যের ইউনিভার্সিটি অফ ক্রিয়েটিভ আর্টস (ইউসিএ) কালো তালিকাভূক্ত করেছে এমন সংবাদ প্রচারিত হয়েছে। যেখানে একাত্তর টিভি সরাসরি দেশের সুনামধন্য ২৬ তম পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালকে বুঝিয়েছে। সেই সংবাদটি শুক্রবার (২২ এপ্রিল) সকাল থেকে আর পাওয়া যাচ্ছে না।  বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের দাবি সংবাদটি অসত্য ছিল এটা তাদেরকে জানানোর পর তারা সরিয়ে নিয়েছে।

এ বিষয়ে উপাচার্য অধ্যাপক ড. এ এফ এম আবদুল মঈন বলেন, আমি নিউজটা পাবলিশ হওয়ার সাথে সাথেই তাদের সাথে কথা বলেছি। তারা আমার বক্তব্য সঠিকভাবে দেয়নি, আর প্রকাশিত তথ্যটিও সঠিক নয়। আমি তাদেরকে জানিয়েছি এই ফ্যাক নিউজ সরিয়ে নেয়ার জন্য। তারা পরে সংবাদটি সরিয়ে নিয়েছে।