স্বরূপে ফিরছে ঢাকা

 প্রকাশ: ১০ মে ২০২২, ০৬:১০ অপরাহ্ন   |   জাতীয়



ঈদের লম্বা ছুটি শেষে অফিস-আদালত, স্কুল-কলেজসহ সবকিছুই খুলে গেছে। নাড়ির টানে গ্রামে ফেরা মানুষগুলো আবার রুটি-রুজির তাগিদে ফিরে এসেছেন যান্ত্রিক নগরী ঢাকাতে। মানুষের পাশাপাশি ঢাকার রাস্তাগুলোতে বেড়েছে পরিবহনের সংখ্যা। কোথাও কোথাও যানজটেও পড়তে হচ্ছে নগরবাসীদের। ধীরে ধীরে চিরচেনা রূপে ফিরতে শুরু করেছে রাজধানী ঢাকা।

ঈদুল ফিতর উপলক্ষে এ বছর দেশের সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের চাকরিজীবীরা ২৯ এপ্রিল থেকে ৪ মে পর্যন্ত টানা ছয় দিনের ছুটি পান। ঈদের চারদিনের ছুটের সঙ্গে ঈদের আগে সাপ্তাহিক ছুটি (শুক্রবার ও শনিবার) মিলে এই লম্বা ছুটি মেলে। এছাড়াও মে দিবস উপলক্ষে ১ মে ছুটি ছিল।


ঈদের আগের শুক্রবার ছিল ২৯ এপ্রিল। পরদিন (শনিবার) ৩০ এপ্রিল। ১ মে রোববার শ্রমিক দিবসের সরকারি ছুটি। একইসঙ্গে এদিন ঈদের ছুটি শুরু হয়। এরপর সোম, মঙ্গল ও বুধবার (২, ৩ ও ৪ মে) ঈদের সরকারি ছুটি ছিল। এক্ষেত্রে কেউ কেউ ৫ মে (বৃহস্পতিবার) বাড়তি ছুটি নেন। এতে ৬ ও ৭ মে (শুক্র ও শনিবার) মিলিয়ে টানা নয়দিন ছুটি কাটান।

এমন লম্বা ছুটি মেলায় ঈদের প্রায় সপ্তাহখানেক আগে থেকেই ঢাকা ছাড়তে শুরু করে মানুষ। এতে গ্রামে ফেরা মানুষের ঢল নামে বাস, ট্রেন ও লঞ্চে। আবার ছুটে শেষে গত শুক্র, শনি ও রোববার ঢাকা ফেরা মানুষের ঢল নামে। নাড়ির টনা ঢাকা ছাড়া মানুষগুলো আবার ফিরে আসায় কর্মব্যস্ত এ শহরের রাস্তায় যানজটের সেই চিত্র আবার অনেকটাই ফিরে এসেছে।

মঙ্গলবার (১০ মে) সকালে রামপুরা ও মালিবাগ অঞ্চলে গাড়ির বেশ চাপ দেখা যায়। এতে এই অঞ্চলের রাস্তাগুলোতে কিছুটা যানজটও সৃষ্টি হয়। অথচ গত রোববারও (৮ মে) এই অঞ্চলের রাস্তাগুলো বেশ ফাঁকা ছিল। রামপুরা ও মালিবাগের মতো কাকরাইল, বাংলামোটর, ফার্মগেট, তেজগাঁও অঞ্চলেও যানবাহনের বেশি চাপ দেখা যায় এবং কোথাও কোথাও যানজটের দৃশ্য চোখে পড়ে।


রামপুরা থেকে কাকরাইলে আসা মাসুম বিল্লাহ বলেন, ঈদের ছুটে শেষে শুক্রবার ঢাকায় ফিরেছি। রোববার থেকে অফিস করছি। রোববার রাস্তা বেশ ফাঁকা ছিল। গতকাল থেকে রাস্তায় গাড়ির চাপ বেড়েছে। যে কারণে রাস্তায় যানজট সৃষ্টি হতে শুরু হয়ে গেছে। গতকালের থেকে আজ যানজট বেশি মনে হয়েছে। তবে স্বাভাবিক সময়ের মতো যানজট এখনো শুরু হয়নি।

কাকরাইলে কথা হয় সুপ্রভাপ পরিবহনের চালক মো. মালেক মিয়ার সঙ্গে। তিনি বলেন, গতকাল থেকে রাস্তায় গাড়ির চাপ বেড়েছে। ফলে রাস্তায় যানজট সৃষ্টি হচ্ছে। রোববারও রাস্তা ফাঁকা ছিল।

তিনি আরও বলেন, আমাদের এই রুটে নিয়মিতই যানজট হয়। ঈদের ছুটে শেষে রাস্তায় গাড়ি বাড়ায় এখন ফের যানজটে পড়তে হচ্ছে। তবে এই রুটে স্বাভাবিক সময়ে যেমন যানজট থাকে তা এখনো শুরু হয়নি। আমাদের ধারণা আগামী রোববার থেকে রাস্তায় প্রচণ্ড যানজট হবে।

ফার্মগেটে কথা হয় বিআরটিসি পরিবহনের চালক ফজর আলীর সঙ্গে। তিনি বলেন, ঈদের ছুটে শেষ হয়ে গেছে। গ্রাম থেকে মানুষ ঢাকায় ফিরে এসেছেন। রাস্তায় মানুষের চলাচল যেমন বেড়েছে, তেমনি বেড়েছে গাড়ির সংখ্যা। ফলে কিছু কিছু জায়গায় যানজট সৃষ্টি হচ্ছে। তবে ঢাকার চিরাচরিত যে যানজট তা এখনো শুরু হয়নি। আগামী সপ্তাহ থেকে ঢাকা আবার সম্পূর্ণ রূপে আগের চেহারায় ফিরে আসবে বলে মনে করছেন তিনি।

প্রায় একই ধরনের কথা বলেন আলিফ পরিবহনের চালক মো. মিরাজ। তিনি বলেন, ঈদের ছুটিতে এবার প্রচুর মানুষ ঢাকা ছেড়ে গ্রামের বাড়ি যান। যে কারণে ঢাকার রাস্তা কয়েকদিন একেবারে ফাঁকা ছিল। রোববারও রাস্তা ফাঁকা পেয়েছি। সবশেষ দু’দিন ধরে রাস্তায় গাড়ির চাপ বেড়েছে। তবে এখনো স্বাভাবিক সময়ের তুলনায় রাস্তায় কম গাড়ি চলাচল করছে। আমাদের ধারণা এ সপ্তাহের বাকি কদিন এভাবেই থাকবে। আগামী রোববার থেকে ঢাকার রাস্তা তার চিরচেনা রূপে ফিরবে বলে মনে করেন এই বাসচালক।